সকালের মিষ্টি রোদ

সকালের মিষ্টি রোদ's Category :

সকালের মিষ্টি রোদ's Publication :

সকালের মিষ্টি রোদ's Writer :

সকালের মিষ্টি রোদ


"সকালের মিষ্টি রোদ" বইটির মূল্য

নতুন বইঃ 65 Taka


"সকালের মিষ্টি রোদ" বইটির বিস্তারিত

আচ্ছা ইসলামিক শিক্ষা যদি গল্পের ছলে মাথায় গেঁথে দেয়া যায়, তাহলে কেমন হয়? দৈনন্দিন জীবনে চলার পথে ভুলের মাঝে যদি সৎ উপদেশ বা কোরআন ও হাদিস দিয়ে শিক্ষা দেয়া যায় তাহলে মন্দ হয়না নিশ্চয়ই। বরং সেটা হয়তো মাথায় গেঁথে যাবে বেশি। এই বইটি তেমন ই একটি শিক্ষণীয় বই। গল্পের মাঝেই হাদিস শিক্ষা দেয়া হয়েছে। মোট ১০ টি গল্পে বিভিন্ন হাদিস এসেছে গল্পের প্রয়োজনে। জোর করে কোন কিছু শিখানোর চেয়ে গল্পের ছলে শিক্ষা দিলে হয়তো আলোর পথে আনা সহজ হয়।

আসুন দেখা যাক সারাংশে গল্পের ভাবার্থ।

১/ সুখের বারান্দাঃ
অনেকেই অসুস্থ ব্যক্তিকে এড়িয়ে চলেন। কিন্তু ইসলাম কি বলে?
পরিচিত কেউ অসুস্থ্য হলে তাকে দেখতে যাওয়া একটা সওয়াবের কাজ। ক্লাসের সব ছাত্র নিয়ে অসুস্থ এক ছাত্রকে দেখতে যাবার সময় এসব ই বুঝাচ্ছিলেন হেডস্যার। নবী সঃ ‘ যে ব্যক্তি কোন অসুস্থ মানুষকে দেখতে যায়, তাকে উদ্দেশ করে আকাশ থেকে একজন ঘোষণাকারী ফেরেশতা বলতে থাকেন, তোমাকে ধন্যবাদ, তোমার এ পথচলা ধন্যবাদযোগ্য। তুমি তো বেহেশতে তোমার জন্য একটি আবাস, একটি বাড়ি তৈরি করে নিলে।’
অপর এক হাদিসে আসছে, ‘ তোমারা যখন অসুস্থ মানুষের কাছে যাও, তখন তার জীবন সম্পর্কে আশাব্যাঞ্জক কথা বলো। তোমার এই কথা অসুস্থ ব্যক্তির তাকদীরের ফায়সালা যদিও খণ্ডাতে পারবে না, কিন্তু তার মনটা এতে খুশি হয়ে যাবে।’

২/ মানুষের সেতুঃ
দুই বন্ধুর মাঝে কোন সমস্যা হলে ৩য় বন্ধু সমাধানের উদ্যোগ নেয়। আর এই উদ্যোগকে নিয়ে একটি হাদিস আছে। ‘আমি কি তোমাদেরকে নফল নামজ-রোযার চেয়েও উত্তম একটি জিনিসের কথা বলবো না? সেটা হচ্ছে পরস্পরের মাঝে সমঝোতা ও সুসম্পর্ক তৈরি করে দেয়া। আর তোমরা হিংসা-বিদ্বেষ থেকে দূরে থাকবে। কারণ হিংসা বিদ্বেষ (পুণ্যকে) চেঁছে শূন্য করে দেয়।’

৩/ স্বচ্ছ আলোর মুখঃ
কখনো পণ্য বিক্রি করে বা অন্য কোন ভাবে কাওকে ঠকাতে চেষ্টা করেছেন? পরে নিজেই ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন? এটা নিয়ে একটি হাদিস আছে জানেন? ‘যেই লোক কোনো দোষযুক্ত, ত্রুটিযুক্ত জিনিস ক্রেতাকে না জানিয়ে বিক্রি করলো, সে সব সময় আল্লাহ্‌র রাগ আর ক্রোধের মাঝেই পড়ে থাকবে এবং ফেরেশতাগণ তার উপর সবসময় অভিশাপ দিতে থাকবেন।’

৪/ তাদের জন্য কাজঃ
কেউ মারা গেল দেখেছেন নিশ্চয়ই অনেক কুসংস্কার করতে, মানতে… কিন্তু ইসলাম কি বলে? হাদিসে এসেছে মৃত ব্যাক্তির নামে দান করলে সে সেই সওয়াব পাবে। অন্য হাদিসে এসেছে ‘কবরে মৃত ব্যক্তির অবস্থা ঠিক ঐ ডুবন্ত ব্যাক্তির মতো, যে জীবন বাঁচানোর জন্য সাহায্যের আশায় চিৎকার ও ফরিয়াদ করতে থাকে। মৃত ব্যক্তির বাবা-মা, ভাই ও বন্ধুদের দুআর জন্য অপেক্ষা করতে থাকে। তারপর সে যখন তাদের দুআ লাভ করে তখন এটা তার কাছে দুনিয়া এবং দুনিয়ার সকল জিনিস থেকে বেশি প্রিয় মনে হয়। মহান আল্লাহ দুনিয়াবাসীর দুআর বরকতে কবরবাসীর উপর পাহাড় সমান রহমত ও মাগফিরাত দাখিল করে থাকেন। আর মৃতদের জন্য জীবিতদের হাদিয়া হলো, তাদের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করা।’

৫/ বিষের স্বাদঃ
কারো সাথে দেখা হলে কথায় কথায় পরনিন্দা, পরচর্চায় আমরা মশগুল হই। কিছু হাদিস কি বলে? গীবত হচ্ছে ‘তোমার ভাইয়ের এমন কিছু তার অগোচরে আলোচনা করা, যা সে খারাপ মনে করে, তার মধ্যে এ দোষটি থাকলেই তো বলা যাবে তুমি গীবত করছো। আর এটি যদি তার মধ্যে আদৌ না থাকে তাহলে তো তুমি তার ওপর অপবাদ দিলে।’

৬/ ছোঁয়াঃ
একটা কথা নিশ্চয়ই শুনেছেন সৎ সঙ্গে স্বর্গবাস, অসৎ সঙ্গে সর্বনাশ… ছেলে বখাটেরদের পাল্লায় পরেও এখনো বখে যায়নি। তাকে ঠিক করতে একটি হাদিসের অবতারণা ‘মানুষ তার বন্ধুর জীবনাচার দ্বারা প্রভাবিত হয়। তাই তোমাদের প্রত্যেকেই যেন দেখে নেয় যে, সে কার সাথে বন্ধুত্ব করছে।’

৭/ অবাক স্বীকারোক্তিঃ
নিজের দোষ কথার মার-প্যচে অন্য কাওকে গুছিয়ে দিয়েছেন? এটার ভয়াবহতা জানেন? নবী সঃ বলেছেন ‘আমি তো একজন মানুষই। আমার কাছে বিচারপার্থীরা আসে। তখন হতে পারে, তোমাদের কেউ অন্যজনের চেয়ে বেশি গুছিয়ে কথা বলবে এবং সে অনুযায়ী রায়ও দিয়ে দিতে পারি। তাই আমি যাকে কোন মুসলমানের হক্ক দিয়ে দেই, সেটা হবে তার জন্য আগুনের টুকরো। তারপর সে এটা গ্রহণ করুক অথবা ছেড়ে দিক।

৮/ বৃষ্টি ভেজা বিকেলঃ
কখনো মন খারাপের মুহূর্তেও অন্যের সাথে হেসে কথা বলেছেন? বা নিজে কষ্ট করে কিছু করে বা পেয়ে অন্যের জন্য তা দিয়ে দিয়েছেন? নবী সঃ বলেছেন ‘তোমরা সদাচরণের কোন কিছুকেই তুচ্ছ মনে করবে না। একটি সদাচরণ এটিও যে, তুমি তোমার ভাইয়ের সঙ্গে হাসিমুখে সাক্ষাৎ করবে। আরেকটি সদাচরণ এটিও যে, তুমি তোমার বালতি থেকে তোমার ভাইয়ের বালতিতে পানি ভরে দিবে।’

৯/ সকালের মিষ্টি রোদঃ
অন্যের ভোগ-বিলাস দেখে আফসোস হয় আপনার কেন সেসব নেই? ভাবেন নামাজ রোজা আল্লাহ্‌র সব হুকুম মানার পরও কেন সব অন্যের মতো পাচ্ছেন? হাদিস কি জানেন ‘যে ব্যক্তি আল্লাহ্‌র পক্ষ থেকে অল্প রিযিক পেয়ে তুষ্ট হয়ে থাকে, আল্লাহ তাআলা তার পক্ষ থেকে অল্প আমলেই খুশি হয়ে যান।’ ‘তুমি কোন পাপাচারী ব্যক্তির প্রাচুর্য দেখে ঈর্ষান্বিত হয়ো ন। কারণ তুমি জানো না, তার মৃত্যুর পর কেমন বিপদ তার সাথে সাক্ষাৎ করছে। নিশ্চয়ই আল্লাহ্‌র কাছে তার জন্য এমন ঘাতক রয়েছে, যার মৃত্যু নেই।’

১০/ আলোর মুখে ছবিঃ
বৈজ্ঞানিক গবেষণায় দেখা যায় কিছু কিছু নক্ষত্রের আলো পৃথিবীতে আসতে প্রায় কয়েকদিন, মাস, বছর লাগে। যদি এমন হয় আপনি সে নক্ষত্রে চলে গেলেন আর সেখানে বসে আগের ঘটে যাওয়া ঘটনা মাত্র দেখা শুরু করলেন কেমন হয়?
এই গল্পটি মুসলিমদের বিভিন্ন বিজয় গাঁথা সেভাবেই কল্পনা করে লেখা হয়েছে। দেখা হয়েছে বিজয় মাঝে মাঝে মুসলিমদের অসতর্কতা ও দ্বীন না মেনে চলে পিছিয়ে যাওয়ার গল্প… তারপরও স্বপ্ন দেখে চলি একদিন সুদিন আসবে ফিরে।

ইসলামের ছায়াতলে আসতে খুব বেশি কি কষ্ট? খুব সহজেই আসা যায় আলোর নীড়ে, সুশীতল ছায়ায়… শুধু প্রয়োজন জানা, বুঝতে পারা ও মানা… আল্লাহ সবাইকে সেই তৌফিক দিক, আমিন ।
0