প্রোডাক্টিভ মুসলিম

প্রোডাক্টিভ মুসলিম's Category :

প্রোডাক্টিভ মুসলিম's Publication :

প্রোডাক্টিভ মুসলিম's Writer :

প্রোডাক্টিভ মুসলিম


"প্রোডাক্টিভ মুসলিম" বইটির মূল্য

নতুন বইঃ 250 Taka


"প্রোডাক্টিভ মুসলিম" বইটির বিস্তারিত

ভাষান্তর: মিরাজ রহমান, হামিদ সিরাজী
পৃষ্ঠা: ২৫৬

[ এখানে একটা ওয়েবসাইটের লিংক দেওয়া আছে।
www.sleepyti.me

এই ওয়েবসাইটে ক্লিক করতে আপনি বুঝতে পারবেন, প্রত্যাশিত সময়ে জাগতে হলে কখন আপনার ঘুমানো উচিৎ। দারুণ একটা ব্যাপার! ]

ঘুম বিষয়ক গবেষকদের অনুমান অনুযায়ী বেশিরভাগ মানুষের স্লিপ-সাইকেল গড়পড়তা ৯০ মিনিট। এর মানে, ১ম থেকে ৫ম ধাপের সংক্ষিপ্ত সময়ের মধ্য দিয়ে আপনি একটি সম্পূর্ণ স্লিপ-সাইকেল পূর্ণ করেন। ধরুন, আপনি রাত ১০.০০টায় ঘুমিয়ে সকাল ৫.০০টায় জেগে উঠতে চান। এই সময়সীমার মধ্যে আপনি কতগুলো ৯০ মিনিটের স্লিপ-সাইকেল নির্ধারণ করতে পারেন? এখানে যে কয়টা স্লিপ-সাইকেল নির্ধারণ করতে পারেন।

রাত ১০.০০ থেকে রাত ১১.৩০ = প্রথম স্লিপ-সাইকেল
রাত ১১.৩০ থেকে রাত ০১.০০ = দ্বিতীয় স্লিপ-সাইকেল
রাত ০১.০০ থেকে রাত ০২.৩০ = তৃতীয় স্লিপ-সাইকেল
রাত ০২.৩০ থেকে রাত ০৪.০০ = চতুর্থ স্লিপ-সাইকেল
এভাবে প্রতি ৯০ মিনিটে এক একটা স্লিপ-সাইকেল।

থামুন! আপনি আরও একটু সামনে যান। ভোর ৪.০০টার জায়গায় ভোর ৫.০০টায় জাগেন, তখন কী ঘটবে ধারণা করতে পারেন? আপনি স্লিপ-সাইকেলের মাঝখানে জেগে উঠবেন (৯০ মিনিট হয়নি)। তখন আপনার সত্যিই ক্লান্তি আর মাতাল অনুভ‚ত হবে। আর যদি আপনি ভোর ৫টা (অন্য একটি পূর্ণ স্লিপ-সাইকেল) পর্যন্ত ঘুম চালিয়ে যান, সেক্ষেত্রে আপনার ফজরের সালাত কাজা করার আশঙ্কা থেকে যায়।

আমি জানি, আপনি কী ভাবছেন। ‘কিন্তু ভোর পাঁচটার আগে আমার তো পুরো এক ঘণ্টা পড়ে আছে! আমি তা অপচয় করতে চাই না!’ বেশ, এ সময়টা আপনি আত্মোন্নয়নমূলক কাজকর্মে ব্যয় করতে পারেন। যেমন : তাহাজ্জুদ সালাত, ব্রেইনস্টোর্মিং, অধ্যয়ন এবং দিনের বা সপ্তাহের পরিকল্পনা তৈরিতে। তবে আপনি যদি স্লিপ-সাইকেলের মাঝামাঝি না জেগেও আরেকটু ঘুমিয়ে নিতে চান, তাহলে আমার পরামর্শ—আপনি ৪টায় পুরোপুরি জেগে উঠুন (একদম বিছানায় উঠে বসুন, বাথরুম সেরে আসুন), অতঃপর ২০-৪০ মিনিট ন্যাপ গ্রহণ করুন; কোনোভাবেই এর বেশি নয়! ২০-৪০ মিনিটের ঘুম নিশ্চিত করে আপনি জাগরণ অবস্থার খুব কাছাকাছি অবস্থান করছেন এবং ৫.০০টার দিকে জেগে উঠা আপনার জন্য খুব একটা কষ্টকর ব্যাপার হবে না।

সাধারণত আমার সেমিনারগুলোতে এ বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে শ্রোতাদের থেকে প্রচুর প্রশ্ন পেয়েছি। এখানে আমার কাছে প্রায়ই জানতে চাওয়া, সেইসব প্রশ্নগুলো এবং এ বিষয়ে আমার ব্যক্তিগত ভাবনাগুলো আপনাদের সাথে শেয়ার করছি।

এক. ঘুমিয়ে যেতে যে সময়টা প্রয়োজন, তা নিশ্চিত করার জন্য আমার স্লিপ-সাইকেলের শুরুতে কোনো অতিরিক্ত সময় যোগ করার প্রয়োজন আছে কি?

কিছু গবেষকের পরামর্শ, আপনার ঘুমিয়ে পড়তে যে সময়ের প্রয়োজন, তার জোগান দিতে স্লিপ-সাইকেলের শুরুতে ১৫ মিনিট বাড়তি যোগ করুন। যদি দ্রুত ঘুমিয়ে পড়েন, সেক্ষেত্রে এই অতিরিক্ত সময় যোগ করার দরকার নেই এবং প্রথম কয়েক মিনিটকে ‘ঘুমিয়ে পড়ার’ ধাপ হিসেবে বিবেচনা করতে পারেন। কিন্তু রাতে ঘুমানোর জন্য যদি আপনাকে কষ্ট পোহাতে হয়, তবে অতিরিক্ত সময় যোগ করাটা একটি ভালো সিদ্ধান্ত। সাধারণত অতিরিক্ত সময়ের পরিমাণ নির্ভর করে, আপনি ঘুমিয়ে পড়তে কতটুকু সময় নেন তার ওপর।

দুই. আমাদের স্লিপ-সাইকেল নিয়ন্ত্রণের জন্য সহায়ক কোনো অ্যাপ আছে কি?

অবশ্যই আছে! শুধু 'Sleep Cycle' লিখে সার্চ দিলে অসংখ্য ট্যুলস পেয়ে যাবেন, যা আপনাকে স্লিপ-সাইকেল নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করবে। স্মার্টফোন অ্যাপস ছাড়াও আমি সাজেস্ট করি_

• www.sleepyti.me : এটি এমন একটি ওয়বেসাইট, যা আপনার স্লিপ-সাইকেলগুলো বিবেচনা করে এবং আপনি কোন সময় ঘুমের পরিকল্পনা করছেন, সে অনুযায়ী ঠিক কখন ঘুম থেকে উঠা উচিত, তা হিসেব করার সুযোগ দেয়।

• Sleep Cycle Alarm: এটি একটি অ্যাপ, যা আপনার স্মার্টফোনে ইনস্টল করে ঘুমের আগে বালিশের নিচে রেখে দিতে পারেন। তারপর রাতে আপনার টসিং এবং টার্নিং বিচার করে এটা আপনার প্রতিরাতের গড় স্লিপ-সাইকেল বলে দেবে। (আপনার ব্যাপারে জানি না, তবে ঘুমের সময়ে মাথার নিচে একটা স্মার্টফোন রেখে দেওয়াটা আমার জন্য অস্বস্তিকর)।

• Fitbit: এটি ঘড়ির মতো হাতে পরা যায়, এমন একটি ডিভাইস। এটা কেবল আপনার ঘুম (এবং ফিটনেস) ট্র্যাক করে তা নয়; বরং এটা স্লিপ-সাইকেলের ঠিক ‘ধাপ-১’ এর নিকটবর্তী সময়ে আপনাকে আস্তে করে জাগিয়ে দেবে, যাতে আপনি প্রাণবন্ত ও সতেজভাবে জেগে উঠতে পারেন।

[প্রোডাক্টিভ মুসলিম বই থেকে।
0